সোমবার, ১৭ মে ২০২১, ০৮:০৮ অপরাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ
স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে ফরিদপুর জেলা শ্রমিকলীগের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত সালথায় ৯ বছরের শিশু ধর্ষণের ঘটনায় রবিউল আটক মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে, ফরিদপুর জেলা ছাত্রলীগের আয়োজনে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলফাডাঙ্গায় আলোচনা সভা ফরিদপুরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য : মধুালীতে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধুর আত্মহত্যা ফরিদপুরে সিএনজি, মাহেন্দ্র, অটো রিকশা থেকে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ ফরিদপুরে দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী খাজা আটক : স্বস্থিতে কানাইপুরবাসি চরভদ্রাসনে শালীস চলাকালীন অস্ত্র দিয়ে হুমকি : গুলি ও অস্ত্র উদ্ধার ফরিদপুরে এডিফাই কোচিং সেন্টারের উদ্যোগে ঈদ সামগ্রী বিতরন

ফরিদপুরে রিমান্ডে থাকা অবস্থায় ডিবি হেফাজতে আসামির মৃত্যু

  • Update Time : শনিবার, ১ মে, ২০২১, ৬.৫৬ পিএম
  • ২৪৭ Time View

ফরিদপুরে রিমান্ডে থাকা অবস্থায় ডিবি হেফাজতে আসামির মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার : ফরিদপুরে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) হেফাজতে রিমান্ডে থাকা অবস্থায় এক আসামির মৃত্যু হয়েছে। আজ শনিবার সকাল ছয়টার দিকে ডিবি পুলিশের একটি দল ওই আসামিকে ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ব্যাপারে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন ফরিদপুরের পুলিশ সুপার (এসপি)। মৃত ব্যক্তির নাম আবুল হোসেন মোল্লা (৪৮)। তাঁর বাড়ি সালথা উপজেলার সোনাপুর ইউনিয়নের গোপালিয়া গ্রামে। তিনি বিবাহিত এবং দুই ছেলে ও এক মেয়ের বাবা।

আবুল হোসেনের মেয়ে তানিয়া আক্তারের ভাষ্য, ‘আমার বাবা কোনো অপরাধ করেনি। আমার বাবারে রিমান্ডে নিয়া মাইরা ফেলান হইছে।’ আবুল হোসেনকে গত ৫ এপ্রিল রাতে সালথায় সংঘটিত সহিংস ঘটনার জন্য ১৬ এপ্রিল গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তিনি ওই ঘটনায় পুলিশের করা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি ছিলেন না। তদন্তে তাঁর নাম আসায় তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে পুলিশ জানিয়েছে। পুলিশ বলছে, ২৮ এপ্রিল পাঁচ দিনের রিমান্ডে আবুল হোসেনকে জেলা পুলিশের হেফাজতে নেওয়া হয়। ডিবি কার্যালয়ে রিমান্ডে নিয়ে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছিল।

গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুনীল কুমার কর্মকার বলেন, আবুল হোসেনের রিমান্ড চলছিল। সকালে তিনি সাহ্রি করেছেন। আজ ভোর সোয়া পাঁচটার দিকে তিনি শৌচাগারে যান। অনেকক্ষণ ধরে তাঁর কোনো সাড়াশব্দ না পাওয়ায় নিরাপত্তারক্ষী দরজা খুলে দেখেন, তিনি মেঝেতে পড়ে আছেন। তাঁকে দ্রুত ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতালের নথি ঘেঁটে দেখা যায়, হাসপাতালের খাতায় সকাল ছয়টায় ৩৯৩০৯২ নম্বর সিরিয়ালে আবুল হোসেনের নাম লিপিবদ্ধ রয়েছে। ‘তাঁকে মৃত অবস্থায় আনা হয়েছে’ মর্মে খাতায় লেখা রয়েছে। ওই খাতার তথ্য অনুযায়ী, আবুল হোসেনকে হাসপাতালে নিয়ে যান ডিবির উপপরিদর্শক (এসআই) মো. রমজান। ওই সময় জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসক ছিলেন মো. তোফাজ্জেল হোসেন। তিনি বলেন, পুলিশ আবুল হোসেনকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে এসেছে। মৃতের শরীরে দৃশ্যমান কোনো আঘাতের চিহ্ন দেখা যায়নি।

আবুল হোসেনের মেয়ে তানিয়া আক্তার (১৮) বলেন, ‘আমার বাবা কোনো অপরাধ করেননি। আমার বাবারে রিমান্ডে নিয়া মাইরা ফেলান হইছে। আমার বাবা নিরীহ মানুষ ছিলেন। তিনি কোনো দল-পক্ষে থাকেন না। তিনি গরুর খামার নিয়ে থাকতেন।’ মেয়ে তাঁর বাবা হত্যার বিচার চান। সোনাপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. খায়রুজ্জামান বলেন, আবুল হোসেন নিরীহ ধরনের মানুষ ছিলেন। তাঁর একটি গরুর খামার আছে। তিনি ওই খামার নিয়েই থাকতেন। তিনি রাজনৈতিকভাবে আওয়ামী লীগের সমর্থক ছিলেন।

ফরিদপুরের এসপি মো. আলিমুজ্জামান বলেন, আবুল হোসেন মোল্লার মৃত্যুর প্রকৃত কারণ নির্ণয় করতে ময়নাতদন্তের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তিনি জানান, বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও অপারেশন) জামাল পাশাকে আহ্বায়ক করে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

Prayer Timer

Prayer Timer

Share

আরও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Jamat Salat Time and Date

Jamat Salat Time and Date

যোগাযোগঃ- এস-টেক সপ
৩১,৩২ রাকিবউদ্দীন পৌর মার্কেট গোয়লচামট,ফরিদপুর।
মোবাইলঃ 01733160122
ওয়েবঃ https://s-techshop.com

অটো ব্রিকস্

অটো ব্রিকস্

স্বয়ংক্রিয় মেশিনে উৎপাদনকৃত

© স্বত্ব দৈনিক নাগরিক দাবী  - ২০১৯-২০২০
Design by S-Tech Shop