বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ০২:৪২ অপরাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ
ফরিদপুরের কানাইপুরে খাঁজা বাহিনীর অত্যাচার থেকে মুক্তি চায় ইউনিয়ন বাসী ফরিদপুরে ফাইভ আর ইলেকট্রনিক্স এর শোরুম উদ্বোধন ফরিদপুরে সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বিদ্যালয় খোলা রাখায় জরিমানা সালথায় হামলাকারি সন্ত্রাসী পিকুলের খুটির জোড় কোথায়………….প্রশ্ন এলাকাবাসীর সালথায় গুজবে তান্ডবের ঘটনায় এসি ল্যান্ডের মারধরের সত্যতা মেলেনি : ক্ষয়ক্ষতি প্রায় ৩ কোটি ফরিদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ফরিদপুর সদর উপজেলা সরকারের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে এখন জেলার মডেল উপজেলা ফরিদপুরের রথখোলা পতিতা পল্লীর যৌনকর্মীদের উপর বর্বরোচিত হামলার প্রতিবাদে মানবন্ধন শেষে স্মারকলিপি প্রদান হাজার হাজার মুসল্লিদের উপস্থিতিতে চেয়ারম্যান বেলায়েত ফকিরের পিতার দাফন সম্পন্ন ধর্মের নামে যারা ইসলামকে কুলশিত করবে তাদের প্রতিহত করতে হবে – ফারুক খান

লকডাউন নিয়ে সংঘর্ষে সালথা রণক্ষেত্র: নিহত ১

  • Update Time : মঙ্গলবার, ৬ এপ্রিল, ২০২১, ৫.৩৬ পিএম
  • ৪৫ Time View

লকডাউন নিয়ে সংঘর্ষে সালথা রণক্ষেত্র: নিহত ১

নাগরিক দাবি : ফরিদপুরের সালথা উপজেলায় লকডাউন কার্যকর করা না করা নিয়ে স্থানীয় উত্তেজিত জনতা প্রায় চার ঘন্টা ব্যাপী তান্ডব ও ধ্বংশলীলা চালায়, এসময় উপজেলা পরিষদ ও থানা এলাকা রণক্ষেত্রে পরিনত হয়। উত্তেজিত জনতা উপজেলা পরিষদ ভবন, উপজেলা ভূমি অফিস, উপজেলায় পরিষদ চত্তরে স্থাপিত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুড়াল, গাছপালা, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার গাড়ি, সহকারী কমিশনারের গাড়ি, মোটরসাইকেল, উপজেলার সামনে অবস্থিত পেট্রোল পাম্প, সালথা থানা ও কর্মকর্তাদের বাসভবনসহ বেশ কিছু স্থাপনা ভাংচুর, লুটপাট ও অগ্নি সংযোগ করে। সোমবার (৫ই এপ্রিল) বিকেলে উপজেলা সদর থেকে সাড়ে তিন কিলোমিটার দূরের ফুকরা বাজার থেকে ঘটনার সূত্রপাত।

স্থানীয় সূত্রের ভাষ্য অনুযায়ী, করোনা ভাইরাসের কারনে লকডাউনে বিধিনিষেধ কার্যকর করতে দুই আনসার সদস্য ও ব্যক্তিগত সহকারীকে নিয়ে সহকারী কমিশনার ভূমি মারুফা সুলতানা খান হীরামনি ফুকরা বাজারে যান। সে সময় চা পান করতে আসা নটখোলা গ্রামের জাকির হোসেন (৪০) নামের এক ব্যক্তিকে লাঠিপেটা করা হয়েছিল বলে স্থানীয় লোকজন অভিযোগ করেন। ঘটনার জেরে পরে ফুকরা বাজারে পুলিশের সঙ্গে স্থানীয় লোকজনের বাকবিতণ্ডা হয়।

এরপর সেখানে সালথা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ পৌঁছালে উত্তেজিত জনতা পুলিশের ওপর হামলা করে। এতে এস আই মিজানুর রহমানসহ দুজন আহত হয়। এ সময় উপজেলার বিভিন্ন স্থানে গুজব ছড়িয়ে পড়ে পুলিশের গুলিতে দুজন নিহত হয়েছেন। এমন গুজবে শত শত মানুষ এসে থানা ও উপজেলা কমপ্লেক্স ঘেরাও করে। ঘেরাও করলে সংঘর্ষ হামলা, ভাংচুর, লুটপাট ও অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় এক যুবক নিহত হয়েছে বলে জানা যায়, নিহতের নাম জোবায়ের হোসেন, সে উপজেলার রামকান্তপুর গ্রামের দক্ষিনপাড়ার আশরাফ আলি মোল্যার ছেলে।

এছাড়াও এই ঘটনায় পুলিশ র‌্যাবসহ প্রায় অর্ধশতাধিক আহত হয়েছে বলে জানা যায়। এই বিষয়ে লাঠি চার্যে আহত ভ্যান চালক জাকির হোসেন অভিযোগ করেন, কিছু বুঝে উঠার আগেই এসিল্যান্ডের গাড়ি থেকে নেমে এক ব্যক্তি তাকে লাঠি দিয়ে আঘাত করেন। এতে তার মাজা ভেঙে যায়। আহত জাকির হোসেনকে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সালথা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ হাসিব সরকার এ ব্যাপারে বলেন, সম্প্রতি তিনি করোনা আক্রান্ত। ঘটনার সময় তিনি সরকারি বাসভবনে ছিলেন না।

তিনি বলেন, ফেসবুক ও স্থানীয় বিভিন্ন লোকজন গুজব ছড়িয়ে দেয় যে, পুলিশ এবং প্রশাসন ইসলামের বিরুদ্ধে কাজ করছে। তারা একজন হুজুরকে ধরে নিয়ে গেছে। তারা পুলিশ এবং উপজেলা প্রশাসনের বিরুদ্ধে শ্লোগান দিতে দিতে উপজেলা অফিসের দিকে আসতে থাকে। তিনি আরও বলেন, ঘটনাটি জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে অবহিত করলে ফরিদপুর ছাড়াও আশপাশের জেলা হতে পুলিশ ফোর্স আসে। কিন্তু উত্তেজিত জনতার সংখ্যা এত বেশি ছিল যে এই স্বল্পসংখ্যক ফোর্স দিয়ে তাদের ঠেকিয়ে রাখা সম্ভব হয়নি।

একপর্যায়ে তারা উপজেলা অফিস চত্বরে প্রবেশ করে উপজেলা কৃষি অফিসের সমস্ত কিছু তারা ভাংচুর করেছে। আমাদের ল্যাপটপ চুরি করেছে। এবং প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার যে গোডাউন রয়েছে সেটিও তারা আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়। তারা আমার বাসভবনের দিকে অগ্রসর হলে আমার নিরাপত্তায় যে আনসার রয়েছে তারা গুলি করে নিবৃত্ত করার চেষ্টা করে। কিন্তু তারা তাদের উপেক্ষা করে হামলা করে। বাসায় আমার পরিবার ছিল। তারা অতর্কিতভাবে আমার বাসভবনে হামলা চালায়। এখানে গ্যারেজে ইউএনও এবং এসি ল্যান্ডের সরকারি গাড়ি ছিল সে দুটিও জ্বালিয়ে দেয়। তিনি বলেন, একপর্যায়ে তারা বাসভবনের সমস্ত কিছু ভাংচুর করে। পরে অতিরিক্ত পুলিশ এসে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এরমধ্যে উপজেলা ভূমি অফিসের নথিপত্র রেকর্ড সবকিছু জ্বালিয়ে পুড়িয়ে বিনষ্ট করেছে।

সবচাইতে দুঃখজনক ঘটনা হচ্ছে, উপজেলা চত্বরে যে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি এবং মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে যে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল রয়েছে সেগুলো তারা তাণ্ডবলীলা চালিয়ে ভেঙ্গে ফেলেছে। তারা যে ধরনের স্লোগান ব্যবহার করেছে এ থেকে বোঝা যায়, লকডাউন মূল কারণ নয়। মূল কারণ হচ্ছে, এখানে স্বাধীনতাবিরোধী চক্র এবং ধর্মান্ধ গোষ্ঠী তারা বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে ভূলুণ্ঠিত করার জন্য এ হামলা করেছে।

ফরিদপুরের পুলিশ সুপার (এসপি) মো. আলিমুজ্জামান বিপিএম বলেন মঙ্গলবার সকালে সালথা থানা চত্তরে উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সালথা পুলিশের পাশাপাশি ফরিদপুর, বোয়ালমারী, ভাঙ্গা ও নগরকান্দা পুলিশ সদস্যসহ র‌্যাব, আনসার সদস্য কাজ করেছে, তারা ৫৮৮ রাউন্ড শট গানের গুলি, ৩২ রাউন্ড গ্যাস গান, ২২টি সাউন্ড গ্রেনেড এবং ৭৫ রাউন্ড রাইফেলের গুলি ছুড়ে ।

এ সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর আট সদস্য আহত হন। এখন পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। বিভিন্ন ভিডিও ফুটেজ দেখে হামলাকারীদের শনাক্তের চেষ্টা করা হচ্ছে।

 

Prayer Timer

Prayer Timer

Share

আরও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Jamat Salat Time and Date

Jamat Salat Time and Date

যোগাযোগঃ- এস-টেক সপ
৩১,৩২ রাকিবউদ্দীন পৌর মার্কেট গোয়লচামট,ফরিদপুর।
মোবাইলঃ 01733160122
ওয়েবঃ https://s-techshop.com

অটো ব্রিকস্

অটো ব্রিকস্

স্বয়ংক্রিয় মেশিনে উৎপাদনকৃত

© স্বত্ব দৈনিক নাগরিক দাবী  - ২০১৯-২০২০
Design by S-Tech Shop